সংস্কৃতিই শক্তি

আজ থেকে ছয় বছর আগে যখন পারি প্রকাশিত হয় তখনই মুদ্রণ মাধ্যম প্রশ্নবোধক হয়ে উঠেছে। কাগুজে পত্রিকা কি টিকবে? কী লাভ এত সব আয়োজন করে কিছু লেখা মলাটবন্দি করে মানুষের হাতে তুলে দিয়ে। তার চেয়ে অনলাইন মাধ্যমই তো ভালো। ঘরে বসে, রাস্তায় চলতে চলতে, কিংবা কাজের ভেতরেই মুঠোফোনে পড়ে নেয়া যায় পত্রিকা। সেসময় থেকে আজ পর্যন্ত তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশটি হয়েছে বিস্ময়কর …

অন্যায়কে অন্যায় হিসেবে দেখার দৃঢ়তা চাই

সময়টিকে ইতিবাচক করেই দেখতে হবে। দৃষ্টিভঙ্গিকেও বদলাতে হবে। নারীকে শুধু নির্যাতিত, নিপীড়িত হিসেবে দেখলেই চলবে না, দেখতে হবে উন্নয়ন ও অগ্রগতির বড় এক নিয়ামক হিসেবে। সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে বিষবাষ্প যেমন ঢুকছে, একইভাবে ঢুকছে কল্যাণের বাতাসও। এই কল্যাণের পেছনে অবদান রাখছে নারী। একটি শ্রেণি এই সমাজকে শুধুই টাকা উপার্জনের ক্ষেত্র ভাবছে, তাদের  কাছে সমাজের প্রতিটি উপাদান ভোগের। তারা মানুষকে বঞ্চিত করে …

সময়ের অনুশীলনটি মানবিক হোক

আর পাঁচটি রোমহর্ষক, বর্বরোচিত ও নারকীয় ঘটনা যেমন একসময় আরেকটি ঘটনার আড়ালে চলে যায়, বনানী ধর্ষণ ঘটনাও নিয়েও আলোচনা সমালোচনা জল্পনা কল্পনা থেমে গেছে। স্বর্ণ চোরাকারবারি, রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছ হওয়া, রাজধানীর এক শ্রেনীর হোটেল রেস্তোরাঁয় আপত্তিকর সংস্কৃতির বন্যা বয়েই চলেছে। শুধু একটি ঘটনা দুজন সাহসী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর প্রতিবাদ আর তারপর সেখান থেকে বেরিয়ে আসা অপরাধের অসংখ্য শাখা প্রশাখা কেবল …